রাত ১২:৫৬ | শনিবার | ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

সন্তান পালনে পারদর্শী নই : আমির

তিনি একাধারে সফল অভিনেতা, পরিচালক, প্রযোজক ও সমাজকর্মী। কী, চিনতে পারছেন না? বলিউডে মিস্টার পারফেকশনিস্ট নামে সবাই চেনে। আশা করি, এবার আর চিনতে ভুল হবে না। তবে এত গুণ যে ব্যক্তির, তিনি নিজেই স্বীকার করলেন, সন্তান লালন-পালনে অতটা পারদর্শী তিনি নন। গত মঙ্গলবার বায়ান্ন বছরে পা দেওয়া আমির খান ফিল্মফেয়ার ম্যাগাজিনকে খোলামেলা আলাপে জানান চলচ্চিত্র, পরিবার ও তাঁর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা। এ ছাড়া পিতা হিসেবে তাঁর তিন সন্তান জুনায়েদ, ইরা ও আজাদের কাছে তিনি কেমন, সেটিও জানান অকপটে। সেই আলাপের চুম্বক অংশ প্রকাশ করেছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

আমিরের সবচেয়ে ছোট সন্তান আজাদের পিতা হওয়ার অনুভূতি সম্পর্কে জানতে চাইলে আমির বলেন, ‘প্রথম সন্তান জুনায়েদের চেয়ে এটি অন্য রকম অভিজ্ঞতা।’ আমির বলেন, ‘প্রথম সন্তান সব সময় বেশি মনোযোগ পায়। যখন আপনার প্রথম সন্তান হবে, তখন আপনি কিছুটা স্নায়ুচাপে থাকবেন, অতিরিক্ত সাবধানী হবেন এবং ঘটনার সঙ্গে নিজেকে অনেকটা জড়িয়ে ফেলবেন। ১৯৯৩ সালে যখন জুনায়েদের জন্ম হয়, তখন আমি বছরে মাত্র ৩৬ দিন শুটিং করি। বাকি ৩২৮ দিন আমি তাকে সময় দিয়েছিলাম। সেই উত্তেজনা ও স্নায়ুর চাপ আমি ইরা ও আজাদের সময় পাইনি।’

সন্তান লালন-পালনে পারদর্শী নন স্বীকার করে আমির জানান, ছেলেমেয়েদের বড় করার কৃতিত্ব বর্তমান স্ত্রী কিরণ ও আগের স্ত্রী রিনার। তিনি বলেন, ‘আমি স্বীকার করে নিচ্ছি, মানসিকভাবে আমি তাদের পাশে সব সময় থাকতে পারি না। কিরণ সন্তান লালন-পালনে যথেষ্ট পারদর্শী। আমার আগের স্ত্রী রিনাও সন্তান পালনে বেশ পারদর্শী ছিলেন। আমি শুধু আমার প্রথম ছেলে জুনায়েদের ক্ষেত্রে মাত্র এক বছর তাকে সময় দিয়েছি।’

আমির আরো বলেন, ‘সন্তান লালন-পালনে আপনি তখনই পারদর্শী হয়ে উঠবেন, যখন সন্তান লালন-পালনের ক্ষেত্রে আপনি আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনীর সঙ্গে সমান দায়িত্ব ভাগ করে নেবেন। সত্যি বলতে, আমার সেটা কখনই করা হয়নি। আর আমি এটা ভেবে শঙ্কিত যে আমি একজন আত্মকেন্দ্রিক মানুষ। আত্মকেন্দ্রিক মানুষ বলতে, আমি সব সময় আমার নিজের জগতে আমার কাজের মাঝে ডুবে থাকি। এবং আমি যা করছি, তা নিয়েই আনন্দে থাকি, নিজের ভুবনে থাকতে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি। আপনি হয়তো এটাকে বানোয়াট বলতে পারেন; কিন্তু এটাই আমার জীবনের কঠিন সত্য।’

সন্তানদের বলিউড থেকে দূরে রাখবেন কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে আমির বলেন, ‘না আমি তাদের বলিউডে কাজ করতে বলব, না আমি তাদের বলিউড থেকে দূরে রাখব।’ আমির জানান, তাঁর বড় ছেলে থিয়েটারের সঙ্গে যুক্ত এবং তাঁর ছোট মেয়ে সহকারী পরিচালক হিসেবে একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থায় কাজ করছে।

Comments

comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আলফাডাঙ্গায় অপ্পো ব্র্যান্ড সপ এর উদ্বোধন

» মিরপুরে ৩টি ফার্মেসি সিলগালা

» আলফাডাঙ্গায় ছাত্রলীগ নেতা আশিকের মাগফেরাত কামনায় দোয়া

» মানবিক সাহায্যের আবেদন

» মাইজদীতে লাইসেন্স বিহীন ফার্মেসিতে জরিমানা ও মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ জব্দ

» আলফাডাঙ্গায় সরকারের সাফল্য নিয়ে আলোচনা সভা

» রোহিঙ্গাদের হত্যার প্রতিবাদে আলফাডাঙ্গায় বিক্ষোভ

» আলফাডাঙ্গায় ইয়াবাসহ চার যুবক আটক

» ৭ ঘন্টা ধরে বিদ্যুৎ বিহীন আলফাডাংগাবাসী অন্ধকারে ও গরমে অতিষ্ঠ।

» শিগগির চালু হচ্ছে এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়: মেনন

» আলফাডাঙ্গার দলিল জালিয়াত চক্রের হোতা মোক্তার হোসেন,

» আলফাডাঙ্গা উপজেলার উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা জনাব মোঃ আজহারুল ইসলাম এর বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে।

» শ্রীবরদীতে ভেজাল ঔষুধ জব্দ ॥ ৪ ফার্মেসীর জরিমানা

» সাংসদ আব্দুর রহমানের একান্ত প্রচেস্টায় জাতীয়করণ হলো আলফাডাঙ্গা এ জেড পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়

» ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে আলফাডাঙ্গায় মানববন্ধন

সদস্য মণ্ডলী : –

উপদেষ্টা : ডা: রফিকুল ইসলাম বিজলী
আইন উপদেষ্টা : এ্যড জামাল হোসেন মুন্না
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুজাহিদুল ইসলাম নাঈম
সম্পাদক ও প্রকাশক : মাহির শাহরিয়ার শিশির
বার্তা সম্পাদক : সাহিদুল ইসলাম পলাশ ভুইয়া
নির্বাহী সম্পাদক : মনেম শাহরিয়ার শাওন

যোগাযোগ : –

সম্পাদকীয় কার্যালয় : ২৩/৩, তোপখানা রোড,
৪র্থ তালা, (পাক্ষিক অনিয়ম এর পাশে) ঢাকা-১০০০
09602111463, 01911717599, 01611354077
fb.com/bartakantho | Info@Bartakantho.com
প্রকাশনা : সানশাইন ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেড

Design & Devaloped BY Creation IT BD Limited

রাত ১২:৫৬, ,

সন্তান পালনে পারদর্শী নই : আমির

তিনি একাধারে সফল অভিনেতা, পরিচালক, প্রযোজক ও সমাজকর্মী। কী, চিনতে পারছেন না? বলিউডে মিস্টার পারফেকশনিস্ট নামে সবাই চেনে। আশা করি, এবার আর চিনতে ভুল হবে না। তবে এত গুণ যে ব্যক্তির, তিনি নিজেই স্বীকার করলেন, সন্তান লালন-পালনে অতটা পারদর্শী তিনি নন। গত মঙ্গলবার বায়ান্ন বছরে পা দেওয়া আমির খান ফিল্মফেয়ার ম্যাগাজিনকে খোলামেলা আলাপে জানান চলচ্চিত্র, পরিবার ও তাঁর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা। এ ছাড়া পিতা হিসেবে তাঁর তিন সন্তান জুনায়েদ, ইরা ও আজাদের কাছে তিনি কেমন, সেটিও জানান অকপটে। সেই আলাপের চুম্বক অংশ প্রকাশ করেছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

আমিরের সবচেয়ে ছোট সন্তান আজাদের পিতা হওয়ার অনুভূতি সম্পর্কে জানতে চাইলে আমির বলেন, ‘প্রথম সন্তান জুনায়েদের চেয়ে এটি অন্য রকম অভিজ্ঞতা।’ আমির বলেন, ‘প্রথম সন্তান সব সময় বেশি মনোযোগ পায়। যখন আপনার প্রথম সন্তান হবে, তখন আপনি কিছুটা স্নায়ুচাপে থাকবেন, অতিরিক্ত সাবধানী হবেন এবং ঘটনার সঙ্গে নিজেকে অনেকটা জড়িয়ে ফেলবেন। ১৯৯৩ সালে যখন জুনায়েদের জন্ম হয়, তখন আমি বছরে মাত্র ৩৬ দিন শুটিং করি। বাকি ৩২৮ দিন আমি তাকে সময় দিয়েছিলাম। সেই উত্তেজনা ও স্নায়ুর চাপ আমি ইরা ও আজাদের সময় পাইনি।’

সন্তান লালন-পালনে পারদর্শী নন স্বীকার করে আমির জানান, ছেলেমেয়েদের বড় করার কৃতিত্ব বর্তমান স্ত্রী কিরণ ও আগের স্ত্রী রিনার। তিনি বলেন, ‘আমি স্বীকার করে নিচ্ছি, মানসিকভাবে আমি তাদের পাশে সব সময় থাকতে পারি না। কিরণ সন্তান লালন-পালনে যথেষ্ট পারদর্শী। আমার আগের স্ত্রী রিনাও সন্তান পালনে বেশ পারদর্শী ছিলেন। আমি শুধু আমার প্রথম ছেলে জুনায়েদের ক্ষেত্রে মাত্র এক বছর তাকে সময় দিয়েছি।’

আমির আরো বলেন, ‘সন্তান লালন-পালনে আপনি তখনই পারদর্শী হয়ে উঠবেন, যখন সন্তান লালন-পালনের ক্ষেত্রে আপনি আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনীর সঙ্গে সমান দায়িত্ব ভাগ করে নেবেন। সত্যি বলতে, আমার সেটা কখনই করা হয়নি। আর আমি এটা ভেবে শঙ্কিত যে আমি একজন আত্মকেন্দ্রিক মানুষ। আত্মকেন্দ্রিক মানুষ বলতে, আমি সব সময় আমার নিজের জগতে আমার কাজের মাঝে ডুবে থাকি। এবং আমি যা করছি, তা নিয়েই আনন্দে থাকি, নিজের ভুবনে থাকতে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি। আপনি হয়তো এটাকে বানোয়াট বলতে পারেন; কিন্তু এটাই আমার জীবনের কঠিন সত্য।’

সন্তানদের বলিউড থেকে দূরে রাখবেন কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে আমির বলেন, ‘না আমি তাদের বলিউডে কাজ করতে বলব, না আমি তাদের বলিউড থেকে দূরে রাখব।’ আমির জানান, তাঁর বড় ছেলে থিয়েটারের সঙ্গে যুক্ত এবং তাঁর ছোট মেয়ে সহকারী পরিচালক হিসেবে একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থায় কাজ করছে।

Comments

comments

সর্বশেষ আপডেট



এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সদস্য মণ্ডলী : –

উপদেষ্টা : ডা: রফিকুল ইসলাম বিজলী
আইন উপদেষ্টা : এ্যড জামাল হোসেন মুন্না
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুজাহিদুল ইসলাম নাঈম
সম্পাদক ও প্রকাশক : মাহির শাহরিয়ার শিশির
বার্তা সম্পাদক : সাহিদুল ইসলাম পলাশ ভুইয়া
নির্বাহী সম্পাদক : মনেম শাহরিয়ার শাওন

যোগাযোগ : –

সম্পাদকীয় কার্যালয় : ২৩/৩, তোপখানা রোড,
৪র্থ তালা, (পাক্ষিক অনিয়ম এর পাশে) ঢাকা-১০০০
09602111463, 01911717599, 01611354077
fb.com/bartakantho | Info@Bartakantho.com
প্রকাশনা : সানশাইন ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেড

Design & Devaloped BY Creation IT BD Limited